বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪  |   ২৭ °সে
আজকের পত্রিকা জাতীয়আন্তর্জাতিকরাজনীতিখেলাধুলাবিনোদনঅর্থনীতিশিক্ষাস্বাস্থ্য সারাদেশ ফিচার সম্পাদকীয়
ব্রেকিং নিউজ
  •   হাজীগঞ্জে আগুনে পুড়ে ছাই ১০ পরিবারের ঈদ আনন্দ

প্রকাশ : ০৩ এপ্রিল ২০২৪, ০০:০০

পৌর কর্তৃপক্ষের চরম উদাসীনতা

শাহরাস্তির কালীবাড়ি ও ঠাকুরবাজারজুড়ে ফুটপাত দখলের প্রতিযোগিতা ॥ তীব্র যানজট ও দুর্ভোগ

মোঃ মঈনুল ইসলাম কাজল ॥
শাহরাস্তির কালীবাড়ি ও ঠাকুরবাজারজুড়ে ফুটপাত দখলের প্রতিযোগিতা ॥ তীব্র যানজট ও দুর্ভোগ

শাহরাস্তি উপজেলার প্রাণকেন্দ্র ব্যবসা-বাণিজ্যের মূল কেন্দ্রবিন্দু ঐতিহ্যবাহী ঠাকুরবাজার ও মেহের কালীবাড়ি বাজারে চলছে ব্যবসায়ীদের ফুটপাত দখলের প্রতিযোগিতা। কোনো নিয়মণ্ডনীতির তোয়াক্কা না করে ইচ্ছেমতো ফুটপাত দখলের প্রতিযোগিতায় নেমেছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। পাশাপাশি সড়কে দাঁড়িয়ে যানবাহন থেকে মাল উঠানামা করায় প্রতিনিয়ত ক্রেতাদের দুর্ভোগের পাশাপাশি তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে সড়কে। বহুবার উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করতে দেখা গেলো পৌর কর্তৃপক্ষ ছিল নিরব। প্রশাসনিক যে কোনো পদক্ষেপের কদিনের পরেই আবারো ইচ্ছেমতো সড়ক ব্যবহার করে ব্যবসা করতে দেখা যায় ব্যবসায়ীদের। শাহারাস্তি পৌরসভা কর্তৃক পানি নিষ্কাশনের জন্যে নির্মিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা থাকলেও তা ব্যবসায়ীরা দখল করে নেয়ায় পথচারীরা ফুটপাত হিসেবে ব্যবহার করতে পারছে না। কালীবাড়ি ও ঠাকুরবাজার এলাকায় ফুটপাতের পাশাপাশি সাইনবোর্ড দিয়ে রাস্তা দখল করতে দেখা যায়। সম্প্রতি ঈদ বাজার করতে এসে ক্রেতা সাধারণ দুর্ভোগের কারণে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

কালীবাড়ি, ঠাকুরবাজার শাহরাস্তি উপজেলার প্রধান ব্যবসা কেন্দ্র হওয়ায় এখানেই সবাই কেনাকাটা করতে আসেন। কোনো নিয়মণ্ডশৃঙ্খলার মধ্যে না থাকায় প্রায়ই ক্রেতা সাধারণকে দুর্ঘটনার মধ্যে পড়তে হচ্ছে। এছাড়া এ দুটি বাজারে রয়েছে ব্যাংক, বীমা, সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বেশ কটি হাসপাতাল। রয়েছে কাঁচাবাজারসহ নিত্য পণ্যের বাজার। এছাড়াও কয়েকটি শপিংমল রয়েছে কালীবাড়ি ও ঠাকুরবাজারে। প্রাচীনকাল ধরে এই দুটি বাজার আলাদা হলেও বর্তমানে একটি বাজারে রূপান্তরিত হয়েছে। কেনাকাটার জন্যে শাহরাস্তি উপজেলার শপিং সেন্টারগুলো গ্রাহকদের মন জয় করতে না পারায় শাহরাস্তির ক্রেতারা হাজিগঞ্জ কুমিল্লামুখী বহু যুগ ধরে। তার উপর বাজার অব্যবস্থাপনার কারণে ক্রেতাদের একটি অংশ চলে যাচ্ছে বিভিন্ন উপজেলায়। তাই শাহরাস্তির ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো সঠিকভাবে টিকে থাকতে হলে ক্রেতাদের ভোগান্তি দূর করতে হবে পাশাপাশি সঠিক ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সময় উপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। সে জন্য দরকার শক্তিশালী বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটি এমনটি মনে করেন ক্রেতা সাধারণ। অনেকেই জানান, কালিবাড়ি ঠাকুরবাজার এলাকায় বেশ কিছু প্রভাবশালী ব্যবসায়ী থাকায় বাজার কমিটি তাদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিতে সাহস করেন না। এক্ষেত্রে অনেকটাই অসহায় হয়ে পড়েন বাজার কমিটির সদস্যরা।

শাহরাস্তি পৌরসভার মেয়র হাজী আঃ লতিফের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পৌরসভার পুলিশ নাই, ম্যাজিস্ট্রেট নাই। ফুটপাত দখলমুক্ত করা প্রয়োজন, আমি এ বিষয়ে প্রশাসনকে বহুবার বলেছি। আমরা ব্যবস্থা নিলে ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন ধরনের কথা বলে তাই প্রশাসনকেই এগিয়ে আসতে হবে।

কালীবাড়ি বাজার পরিচালনা কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ কামরুজ্জামান পাটোয়ারী জানান, যানজট নিরসনে আমরা কাজ করছি। কিছু এলাকায় প্রশাসনের সহায়তা কামনা করেন তিনি। ফুটপাত দখলের বিষয়ে তিনি বলেন, ঈদ বাজার উপলক্ষে কিছুটা সুযোগ দেয়া হয়েছে।

ঈদ সামনে রেখে নির্বিঘ্নে কেনাকাটা করতে আসা ক্রেতা সাধারণের সুবিধার জন্য যানজট ও ফুটপাত মুক্ত সড়ক প্রত্যাশা সকলের। কারো গাফিলতির কারণে ঈদের কেনাকাটা করতে আসা ক্রেতা সাধারণের যেনো কোনো প্রকার দুর্ঘটনার মুখে পড়তে না হয় সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবে এটাই সবার প্রত্যাশা।

  • সর্বশেষ
  • পাঠক প্রিয়